‘আমাজন ছাড়া পৃথিবীতে বাঁচা সম্ভব না’

এক ব্রাজিলিয়ান পরিবেশবিদ আমাজন সম্পর্কে তার গবেষণা নিয়ে সাক্ষাৎকারে এ মন্তব্য করেন

অক্সফোর্ড এবং ল্যাঙ্কাস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের আমাজন পরিবেশবিদ এরিকা বেরেনগুয়ের বর্তমান সময়ের বিশিষ্ট পরিবেশ বিজ্ঞানীদের একজন।

মানুষ পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করলে রেইনফরেস্ট কীভাবে তা সংশোধনে কাজ করে সে বিষয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করছেন এরিকা।

৩৮ বছর বয়সী এই ব্রাজিলিয়ান পরিবেশবিদ অ্যামাজন সম্পর্কে তার সর্বশেষ গবেষণা এবং সবার ওপর তার প্রভাব কী হতে পারে সে বিষয়ে এএফপির সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে আলোচনা করেছেন।

আমাজন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে এ বিষয়ে প্রচুর সংবাদ রয়েছে। বিজ্ঞান এ ব্যাপারে কী বলে?

এরিকা: ফলাফল সত্যিই ভয়ঙ্কর। এক সময় আমাজন “টিপিং পয়েন্ট” অর্থাৎ যেখানে রেইনফরেস্ট মারা যাবে এবং কার্বন শোষক থেকে কার্বন নির্গমনকারীতে পরিণত হবে।

এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, গত ৪০ বছরে শুষ্ক মৌসুমে আমাজনের দক্ষিণ-পূর্বে গড় তাপমাত্রা ২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। যা সত্যিই চিন্তার বিষয়।

আমার ধারণা, বিশেষজ্ঞরাও এমন পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত ছিলেন না। প্যারিস চুক্তি বিশ্বকে ১.৫ ডিগ্রিতে সীমাবদ্ধ করার চেষ্টা করছে। সেখানে অ্যামাজনের ২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি আরও বড় সমস্যা।

এছাড়া, উত্তর-পূর্ব অ্যামাজনে শুষ্ক মৌসুমে (আগস্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত) বৃষ্টিপাতও ৩৪% হ্রাস পেয়েছে।

এর অন্তর্নিহিত অর্থ হলো, যদি গরম এবং শুষ্ক জলবায়ু থাকে তবে বনের মধ্যে আরও বেশি আগুন লাগবে। আর এই ভয়ঙ্কর চক্রটি চলতে থাকবে।

আমরা কী এখনও অ্যামাজন বাঁচাতে পারি? আর যদি না পারি তখন কী হবে?

এরিকা: কোটি টাকার প্রশ্ন। আমরা যতক্ষণ না অতিক্রম করছি ততক্ষণ পর্যন্ত কখনই টিপিং পয়েন্টটি জানতে পারব না।

আর এটাই টিপিং পয়েন্টের সংজ্ঞা। অ্যামাজনের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন গতিতে টিপিং পয়েন্টের দিকে দ্রুত এগিয়ে চলেছে।

আমরা যদি টিপিং পয়েন্ট পেরিয়ে যাই, তাহলে সেটাই শেষ। আমি কিন্তু হালকাভাবে কথাটা বলছি না। আমরা গ্রহের সবচেয়ে জীববৈচিত্র্যপূর্ণ স্থানের কথা বলছি।

লাখ লাখ মানুষ জলবায়ু উদ্বাস্তু হয়ে উঠছে। দক্ষিণ আমেরিকা জুড়ে বৃষ্টিপাতের ধরন ব্যাহত হচ্ছে। বৃষ্টি ছাড়া আমাদের জলবিদ্যুৎ নেই।

এর অর্থ, ব্রাজিলে শিল্পের পতন ঘটবে। আর তার মানে বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম অর্থনীতি ও বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম খাদ্য সরবরাহকারীর পতন ঘটবে।

অর্থাৎ, আমরা আমাজন ছাড়া পৃথিবীতে বাঁচতে পারব না।

আপনার হোয়াটসঅ্যাপ প্রোফাইলের ছবিতে বড় অক্ষরে “আশা” (হোপ) শব্দটি লেখা রয়েছে। আমাজনের জন্য আপনাকে কে আশাবাদী রাখে?

এরিকা: চকলেট (হাসি)।

কিন্তু সত্যিই, পরিবর্তনের আশা অবশ্যই আছে। আমার জীবদ্দশায়, আমি ২০০৪ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে বন উজাড়ের হার ৮০%-এর বেশি কমতে দেখেছি। যা সহজ ছিল না।

আপনার বেশ কয়েকটি (সরকারি) সংস্থার মধ্যে সমন্বয় করা প্রয়োজন। তা করাও হয়েছে। তাহলে কেন তার ফল দেখতে পাচ্ছি না?

এরিকা: বিশ্বের প্রত্যেকের জন্য বিভিন্ন ধরনের সমাধান রয়েছে। প্রত্যেককে তাদের কার্বন ফুটপ্রিন্ট কমাতে হবে। কেউ গুহায় বসবাস করতে ফিরে যাবে না, তবে আমরা কী করতে পারি তার গভীর প্রতিফলন আমাদের সবারই দরকার।

আমাজন থেকে আসা পণ্যগুলোতে স্বচ্ছতার জন্য আমাদের চাপ দিতে হবে। আপনার স্বর্ণ কোথা থেকে আসছে তা জানুন, আপনার গরুর মাংস কোথা থেকে আসছে তাও জানুন।

তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যেটি তা হলো, আমাদের কাঠামোগত পরিবর্তনে জোর দিতে হবে। আমাদের সরকার এবং কর্পোরেশনগুলোকে দূষিত বায়ু নির্গমণ কমাতে চাপ দিতে হবে।

আপনার জন্য নির্বাচিত খবর

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here

আরও পড়ুন

যুক্ত হউন

1,000FansLike
1,000FollowersFollow
100,000SubscribersSubscribe

সর্বশেষ খবর