রাতে বিশ্বকাপের ‘অ্যাশেজ’

দুই মাস পর শুরু হতে যাচ্ছে ঐতিহাসিক অ্যাশেজ। তার আগে আজ দুবাইয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া।

যে জিতবে সে-ই সেমিফাইনালের পথে অনেকটা এগিয়ে যাবে। দু’দলই দুটি করে ম্যাচ খেলে দুটিতেই জয় পেয়েছে।

উইন্ডিজ ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দাপটে জিতে আসা ইংল্যান্ড এই প্রথম কঠিন পরীক্ষায় পড়তে যাচ্ছে। চারটি সিরিজ হেরে বিশ্বকাপে আসা অস্ট্রেলিয়াও ছন্দে ফিরেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কষ্টে জিতলেও গত বৃহস্পতিবার রাতে অনায়াসে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সবাইকে বার্তা দিয়েছেন ফিঞ্চ-ওয়ার্নাররা।

অস্ট্রেলিয়ার চিন্তা ছিল ব্যাটিং নিয়ে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ক্লিনিক্যাল ব্যাটিং করে সে চিন্তা অনেকটাই দূর করেছে অসিরা।

তাদের জন্য সবচেয়ে বড় স্বস্তি হলো ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যারন ফিঞ্চের রানের ফেরা।

বিশেষ করে ওয়ার্নার তো লম্বা সময় ধরে রান খরায় ছিলেন। রান না পাওয়ায় আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের একাদশ থেকে পর্যন্ত বাদ পড়েছিলেন তারকা এই ওপেনার।

বৃহস্পতিবার রাতে ৪২ বলে ৬৫ রান করেন তিনি।

রানে ফেরা ওয়ার্নার ইংল্যান্ডের কাছ থেকে কঠিন চ্যালেঞ্জ প্রত্যাশা করছেন, ‘তারা (ইংল্যান্ড) দারুণ একটি অলরাউন্ড দল। তাদের ব্যাটিং গভীরতা অনেক, বোলিংয়েও অনেক বৈচিত্র্য।

একই সঙ্গে আত্মবিশ্বাসেরও তুঙ্গে আছে তারা। আমরা জানি, আজ তাদের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আমাদের ওপর সর্বশক্তি নিয়ে ঝাঁপাবে।’

তবে এই ম্যাচে পাওয়ার প্লেতে যারা চাপ ভালোভাবে সামলাতে পারবে, তারাই জিতবে বলে অভিমত তার।

কঠিন লড়াইয়ের প্রত্যাশা করছেন অসি পেসার প্যাট কামিন্সও, ‘আমরা তাদের সঙ্গে প্রচুর ম্যাচ খেলি।

আমার মনে হয়, আমাদের দুই দলের খেলার স্টাইল অনেকটা একই রকম। তবে সাদা বলের ক্রিকেটে কয়েক বছর ধরেই তারা দুর্দান্ত খেলছে।

আর সেমির পরিপ্রেক্ষিতে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ।’

ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন বিস্ম্ফোরক সব ব্যাটারে পরিপূর্ণ। জেসন রয়, জস বাটলার, ডেভিড মালান, জনি বেয়ারস্টোরা দুর্দান্ত ছন্দে রয়েছেন।

তাদের দুশ্চিন্তা কেবল অধিনায়ক ইয়ন মরগানের ফর্ম নিয়ে। আইপিএল থেকে রান খরায় ভুগছেন মরগান।

গত দুই ম্যাচে ইংল্যান্ড মূল দাপট দেখিয়েছে বোলারদের কারণে।

বিশেষ করে তাদের অফস্পিনার মঈন আলি গত দুই ম্যাচে বোলিংয়ের সূচনা করে চার উইকেট নিয়েছেন।

পেসার তায়মাল মিলসও দারুণ বোলিং করছেন। প্রত্যাশা মেটাতে পারছেন না কেবল লেগস্পিনার আদিল রশিদ। অস্ট্রেলিয়ার বোলিংও ছন্দে আছে।

লেগস্পিনার অ্যাডাম জাম্পা তো দুর্দান্ত বোলিং করছেন। তার সঙ্গে মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স, জস হ্যাজেলউডও খারাপ করছেন না।

তবে অস্ট্রেলিয়ার পঞ্চম বোলার নিয়ে সংকট রয়েছে।

টি২০-তে দুই দল এখন পর্যন্ত ১৯ বার মুখোমুখি হয়েছে। যেখানে ১০ জয় নিয়ে এগিয়ে আছে ইংল্যান্ড, অসিরা জিতেছে ৮ ম্যাচে। একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত।

তবে ইতিহাস যা-ই হোক, দুবাইয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে টস।

অনেকে তো বলছেনই যে, টস জিতলেই নাকি ম্যাচ জেতা অর্ধেক হয়ে যায়। টস জিতলে এই মাঠে সবাই রান তাড়া করছে।

আপনার জন্য নির্বাচিত খবর

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here

আরও পড়ুন

যুক্ত হউন

1,000FansLike
1,000FollowersFollow
100,000SubscribersSubscribe

সর্বশেষ খবর