ঘরে বসে নিজেই যেভাবে করবেন শরীরের ম্যাসেজ

শরীরের নানা অংশের ব্যথা বা অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য অনেকেই ধারস্ত হন নানা ধরনের ম্যাসেজের। এ জন্য ম্যাসেজিং সেন্টারগুলোতে প্রতি নিয়ত আপনার ধরনা দেওয়াও হয় না। কারণ এতে আছে অর্থ খরচের সীমাবদ্ধতা। মাসে এক বা দুইবারের চেয়ে বেশি ম্যাসেজ নিতে গিয়ে হিমশিম অবস্থা হবে নির্ঘাত।

তবে এর সমাধান হচ্ছে, ম্যাসেজিং ডিভাইসগুলো যদি আপনি কিনে ফেলতে পারেন। তাহলে ঘরে বসেই যে কোনো মুহুর্তে করতে পারেন ম্যাসেজ। আসুন জেনে নিই, শরীরের একাধিক অংশের জন্য কিছু ম্যাসেজিং ডিভাইস।

স্কাল্প ম্যাসেঞ্জার: ছোট এ ম্যাসেজিং ডিভাইস সহজেই মস্তিষ্কের জড়তা দূর করতে সাহায্য করে, এটি বেশ কার্যকরও। আর দামও বেশি না। অ্যামাজন থেকে এর মূল্য পড়ে মাত্র ৬ ডলার। মস্তিষ্কের রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে বেশ কাজের এই ২ মি.মি তার দিয়ে বানানো এই ডিভাইস।

ফুল হ্যাড মেসেঞ্জার: হেড ম্যাসেজের তিনটি ধরণের অপশন আছে এ ডিভাইসে। এটি সহজে বহনযোগ্যও। অনেকটা দেখতে হেলমেটের মতো। এটি পানি নিরোধক। এরমধ্যে দিয়ে চোখ, ঘাড়, মাথায় সহজেই ম্যাসেজ করা যায়। কর্ডলেস এবং রিচার্জেবল ভিভাইস। একবার চার্জে ১০৫ মিনিট চালানো যায়। একই সঙ্গে স্মার্টফোন দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। অ্যামাজনে এর দাম পড়বে ৪৪০ ডলার।

আই ম্যাসেঞ্জার: অনেকেই জানেন না, চোখের জন্যও ম্যাসেজিং ডিভাইস আছে। বন্ধ চোখে মোলায়েমভাবে সিলিকন টিপস সহকারে এ ম্যাসেঞ্জার ব্যবহার করতে পারেন। ঠাণ্ডা এবং গরম দুইভাবেই থেরাপি নেওয়া যায় এর মাধ্যমে। একবার চার্জে ৭০ মিনিট কাজ চালানো যায়। এর দাম পড়বে ৭০ ডলার।

ব্যাক ম্যাসেঞ্জার: পিঠ ও মেরুদণ্ড ব্যথার জন্য ব্যাক ম্যাসেঞ্জার ভালই কার্যকর। চেয়ারে বসার মতোই এ ডিভাইস। কোন কোন জায়গায় ম্যাসেজ দরকার, সেটি সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। কার অ্যাডাপ্টারের সঙ্গেও এ ডিভাইস ব্যবহার করা যায়। তবে গাড়ি চালানোর সময় কোনো ভাবেই এটি ব্যবহার করা যাবে না। ডিভাইসটির দাম পড়বে ১৪০ ডলার।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave A Reply

Your email address will not be published.

shares