যে কারণে ৯১ বছর বয়সী নারীকে বিয়ে করলেন এই যুবক!

যে কারণে ৯১ বছর বয়সী নারীকে বিয়ে করলেন এই যুবক!

শুনতে অবাক লাগলেও মরিসিও অসলো নামের ছবির যুবকটি তার ৯১ বছর বয়সী খালাকে বিয়ে করেছেন। বৃদ্ধা মারা গেলে যেন তিনি স্ত্রী মারা যাবার কারণ দেখিয়ে টাকা তুলতে পারেন এমন ইচ্ছা নিয়েই বিয়ে করেছিলেন আর্জেন্টিনার এ যুবক।

বিষয়টি নিয়ে ইনফরমেশন নাইজেরিয়ায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বাবা-মায়ের ডিভোর্সের পর আট বছর আগে মরিসিও চলে যান দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শহর সাল্টাতে। সেখানে মা, ভাই এবং নানীর সঙ্গে থাকতে শুরু করেন।

তার নানী থাকতেন ইয়োলান্ডা নামের ওই নারীর সঙ্গে একই বাসায়। ওই সময়ে ২৩ বছর বয়সী এই যুবক বৃদ্ধাকে বলেন, টাকার অভাবে আইন বিভাগের পড়ার সমাপ্তি টানতে চান তিনি।

তবে বৃদ্ধা তাকে সাহস জুগিয়ে বলেন, তার স্নাতক শেষ করতে সমস্ত সাহায্যই করবেন তিনি। সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দুই বছর আগে টাকার জন্য মরিসিও এবং ইয়োলান্ডা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তারা বিবাহ করেছিলেন বলে সম্প্রতি সংবাদকর্মীদের জানিয়েছেন মরিসিও। তিনি বলেন, আমার বাবা-মায়ের ছাড়াছাড়ি হয়ে যাবার পর আমি তকে বলি যে আমি পড়াশুনা ছেড়ে দিব। আর আমার আর্থিক সংকটের কারণেই বিয়ে করি আমরা।

মরিসিও বলেন, আমাকে পড়াশুনা শেষ করতে বলেন ইয়োলান্ডা। তিনি বলতেন, আমি তোমাকে সহায়তা করছি কারণ তুমি সবসময় আমার যত্ম নিচ্ছ, আমার সঙ্গে ডাক্তারের কাছে যাচ্ছ এবং আমার অন্য সকল সমস্যার সমাধানে সহায়তা করছ তুমি। আমাদের বিয়ের ১৪ মাস পরেই ইয়োলান্ডা আমাকে ছেড়ে চলে যায়।

এ ঘটনার কিছুদিন পরেই মরিসিও অপত্মীক পেনশনের জন্য আবেদন করেন। তবে তার ইচ্ছা পূরণ হয়নি কারণ ওই বৃদ্ধার প্রতিবেশীদের থেকে তথ্য নিয়ে সামাজিক সহায়তা দানকারী প্রতিষ্ঠান মরিসিও’র আবেদনকে নাকচ করে দিয়েছে। কারণ প্রতিবেশীরা বলছেন, এই বিয়ের বিষয়ে তারা কিছুই জানেন না।

প্রতিবেশীদের বিয়ের বিষয়ে না জানার কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে থাকেন তারা, তাদের কারও সঙ্গেই পরিচয় নেই আমার। সুতরাং আমাদের বিয়ের বিষয়ে তাদের কিছু জানারও সুযোগ নেই।

তবে বিয়েটি সকল আইনি প্রক্রিয়া মেনেই হয়েছিল বলে জানিয়ে আবেদন নাকচের বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাবার কথা জানিয়েছেন মরিসিও।

Sharing is caring!

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *