বিয়ে করুন, সচ্ছল হবেন ইনশাআল্লাহ।

বিবাহ করা ও করানো রাসূল সা.-এর গুরুত্বপূর্ণ সুন্নত ও মুসলমানের জন্য একটি কর্তব্য। আল্লাহ তাআলা বলেন, তোমাদের মধ্যে যারা অবিবাহিত (পুরুষ হোক বা নারী) তাদেরকে বিবাহ করিয়ে দাও এবং তোমাদের মধ্যে দাসদাসীদের মধ্যে যারা সৎকর্মপরায়ণ, তাদেরও (বিবাহ করিয়ে দাও)। যদি তারা অভাবী হয় আল্লাহ তাআলা নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে ধনী বানিয়ে দেবেন। [কুরআন কারীম: ২৪:৩২] এক হাদীসে আল্লাহর রাসূল সা. বলেন, যে অভাবের ভয়ে বিবাহ পরিত্যাগ করল, সে আমার উম্মত না। [ইয়াহয়া উলূমুদ্দীন : ১২৪৬]
অনেক মানুষ সচ্ছলতা না থাকার কারণে ও অত্যধিক খরচের ভয়ে বিয়ে করতে সাহস করে না। রাসূল সা. বলেন, ঋণগ্রহীতা মারা গেলে কেয়ামতের দিন তার কাছে তার ঋণ আদায় করে নেয়া হবে। তবে যে-ব্যক্তি আল্লাহ রাস্তায় গিয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে এবং আল্লাহর শত্রু ও তার শত্রুর বিরুদ্ধে শক্তি বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে ঋণ করে; যে-ব্যক্তির কাছে কেউ মারা গেলে তার দাফন-কাফনের জন্য ঋণ করে এবং যে-ব্যক্তি বিবাহ করতে পারবে না বলে আশঙ্কা করছে আর এ কারণে তার নিজের ধর্মের ব্যাপারেও শঙ্কিত হয়ে পড়েছে, ফলে সে বিয়ের জন্য ঋণ করেছে, কেয়ামতের দিন এই তিন প্রকার ঋণী ব্যক্তির পক্ষ থেকে আল্লাহ তাআলা ঋণ পরিশোধ করে দেবেন। [ইবনে মাজা শরীফ : ২৪৩৫] রাসূল সা. বলেন, তোমরা নারীদেরকে বিয়ে কর কারণ নারীরা তোমাদের কাছে সম্পদ নিয়ে আসবে। [মুসতাদরাক হাকিম : ২৭২৬] অর্থাৎ, তোমরা দরিদ্র থাকলেও বিয়ে করার পর সচ্ছল হয়ে উঠবে।

মনে রাখুন : সময় গেলে সাধন হবে না।

আমার অভিজ্ঞতা : বিয়ের আগে আমার যে-আয় ছিলো বিয়ের পর এখন তা কয়েকগুণ বেড়েছে এবং আরো বাড়বে ইনশাআল্লাহ।

(লিখেছেন আবদুস সাত্তার আইনী ভাই)

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *