বিয়ের আগে সম্পর্ক নিয়ে যা জানা দরকার

বিয়ের ভাবনা ভাবছেন? তাহলে এই লেখাটি আপনার পড়া দরকার। সংসারযাত্রার দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে বুঝেশুনে চলতে হয়। মাথা খাটিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, শুধু ভালোবাসায় সংসার টেকে না; সঙ্গীকে ভালোবাসার পাশাপাশি স্মার্টনেসও দেখাতে হয়। তাই বিয়ের আগে সম্পর্কের খুঁটিনাটি বিষয় জেনে নেওয়া ভালো। বিষয়গুলো সংসারজীবনে কাজে লাগতে পারে।

দুজন দুজনের: সংসার মানে দায়িত্ব। বিয়ের পর সংসারের কোনো কাজ করব না বললে কি চলবে! মনে রাখতে হবে, কাজের ভাগাভাগি মানেই সম্পর্কে উন্নতি। ঘরের কাজ যত বেশি ভাগাভাগি করতে পারবেন, সম্পর্ক তত দৃঢ় হবে। যুক্তরাষ্ট্রের আলবার্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেদের ২০১৫ সালে করা এক গবেষণায় দেখা গেছে, ঘরের টুকিটাকি কাজ ভাগাভাগি করা মানে সম্পর্কে অধিক তুষ্টি। অন্য কাজে অধিক ব্যস্ততা দেখালে সম্পর্কের সুতোয় পড়ে টান।

মধুচন্দ্রিমা রূপকথা: মধুচন্দ্রিমা নিয়ে অনেকের মনে রূপকথার মতো ভাবনা কাজ করে। কিন্তু ভাবনার সঙ্গে বাস্তব মেলে না। অস্ট্রেলিয়ার গবেষকদের মতে, বিয়ের প্রথম বছর পার হওয়ার পরেই দম্পতিদের মধ্যে সত্যিকারের সুখ আসে। বিয়ের প্রথম দিকে যে সুখ কাজ করে, তা মূলত ঘোর (ওয়েডিং হ্যাংওভার)।

চোখ রাঙালেই বিপদ: সংসারে টুকটাক মান-অভিমান থাকতেই পারে। থাকতে পারে কথা-কাটাকাটি। এগুলো বুদ্ধি দিয়ে সামলাতে হয়। যুক্তরাষ্ট্রের গটম্যান ইনস্টিটিউটের বিয়ে গবেষক জন গটম্যান বলেন, অবজ্ঞাসূচক আচরণ, যেমন চোখরাঙানি, আজেবাজে নামে ডাকা, ঠাট্টা, তুচ্ছতাচ্ছিল্য করলে সম্পর্ক টেকে না।

স্নেহ-আদরে মন ভেজে: দীর্ঘ মেয়াদে সুখী দাম্পত্যের মূলে আছে আদর-সোহাগ। ২০১৪ সালে কানাডার টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেদের করা গবেষণায় দেখা গেছে, অল্প একটু আদর-সোহাগে সম্পর্কের সন্তুষ্টি বাড়িয়ে দেয়।

আর্থিক বিতর্কে সম্পর্কের ক্ষতি: বিয়ের পর আর্থিক বিষয় সামনে এলে দাম্পত্যে টানাপোড়েন শুরু হয়। তখন সম্পর্ক নড়বড়ে হতে শুরু করে। কানসাস স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৩ সালে করা এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিয়ের পরপর আর্থিক বিতর্ক শুরু মানে বিচ্ছেদের পূর্বাভাস। তাই এ বিষয়ে সতর্কতা জরুরি।

পুরুষের লাভ: গবেষকেরা মনে করেন, দাম্পত্য জীবনে পুরুষেরা বেশি সুবিধা পান। এ কারণে স্ত্রীর প্রতি স্বামীর অধিক দায়িত্বশীল ও সহমর্মী থাকা উচিত।

তর্ক-বিতর্ক ভালো: বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একটু তর্ক-বিতর্ক হতেই পারে। এটা বরং সম্পর্কের জন্য ভালো। ফ্লোরিডা স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১২ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, সম্পর্কের মধ্যে সুখের রসদ জোগায় খুটখাট তর্ক।

তথ্যসূত্র: হাফিংটন পোস্ট।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *