লাইফ-স্টাইল

প্রতিদিন এই ১০ নিয়ম মেনে চললে ক্যান্সার হবে না কখনোই

আমরা সবাই চাই ক্যান্সারের প্রতিরোধ। প্রায় ৭০ শতাংশ ক্যান্সারই এড়িয়ে চলা সম্ভব এবং এই রোগ মূলত জীবনযাপনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস অনুসরণ করে তাদের স্তন ক্যান্সার বা অন্য কোনো ক্যান্সারে মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৫ শতাংশ কম থাকে।

শরীরচর্চা ও তামাকজাত পণ্য ভোগ বন্ধ করাই সাধারণত ক্যান্সার প্রতিরোধের প্রথম পদক্ষেপ। এরপর নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমেও ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায়। দৈনন্দিন অভ্যাসের পাশাপাশি পুষ্টির বিষয়টিও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

 যেভাবে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ও খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবেই ক্যান্সার প্রতিরোধ করবেন-

১. প্রতিদিন গায়ে রোদ লাগান– যাদের দেহে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি আছে তারা মলাশয় বা স্তন ক্যান্সারসহ নানা ধরনের ক্যান্সার থেকে মুক্ত থাকে। এর ফলে ত্বকের মারাত্মক ক্যান্সার মেলানোমা থেকেও মুক্তির সম্ভাবনা বাড়ে।

২. প্রতিদিন একটি কমলা খান– ক্যান্সার সৃষ্টিকারী এইচ পাইলোরি ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধ করা যায় রক্তে উচ্চমাত্রার ভিটামিন সি দিয়ে। আর এই ধরনের লোকদের দেহে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী উপাদানের আক্রমণও হয় খুব কম।

৩. ব্রকোলি খান– প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে ব্রকোলি খেলে ডিম্বাশয়, পাকস্থলী, ফুসফুস, মূত্রাশয় এবং মলাশয় ও পায়ুপথের ক্যান্সার হয় না। এতে আছে সালফোর‍্যাফেন নামের একটি উপাদান যা স্তন ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে।

৪. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন– নারীদের মধ্যে যারা ক্যান্সারে মারা যায় তাদের ২০ শতাংশই মারা যায় অতিরিক্ত ওজনের কারণে। আর ক্যান্সারে আক্রান্ত পুরুষদের ১৪ শতাংশ মারা যায় অতিরিক্ত ওজনের কারণে। প্রাকৃতিকভাবে ক্যান্সার প্রতিরোধের সেরা উপায়গুলোর একটি এটি।

৫. প্রতিদিন কলা খান– গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে অন্তত চার থেকে ছয়টি কলা খায় তাদের কিডনি ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে যায় অন্তত ৫৪ শতাংশ।

৬. সামান্য কোনো ব্যথা অনুভব করলেও সতর্ক হোন– আপনার যদি প্রায়ই গ্যাসের কারণে পেট ফুলে থাকে, পেলভিক পেইন হয় এবং জরুরি ভিত্তিতে প্রস্রাব করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেওয়ার মতো সমস্যা হয় তাহলে দ্রুত ডাক্তার দেখান। অনেকেই সাধারণত এই লক্ষণগুলো অগ্রাহ্য করে। কিন্তু পরে দেখা যায় যে তারা কোনো মারাত্মক ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়েছে।

৭. প্রতিদিন ক্যালসিয়াম নিন– গবেষণায় দেখা গেছে, যারা টানা চার বছর ধরে প্রতিদিন ক্যালসিয়াম নিয়েছে তাদের মধ্যে নতুন ক্যান্সারপ্রবণ কোলন পলিপ হওয়ার ঝুঁকি ৩৬ শতাংশ কমে গেছে।

৮. প্রতিদিন ৩০ মিনিট ধরে ঘাম ঝরান– সপ্তাহে অন্তত পাঁচ দিন প্রতিদিন ৩০ মিনিট করে শারীরিক তত্পরতায় শরীরে অ্যান্ড্রোজেন ও ইস্ট্রোজেন হরমোন নিঃসরণে ভারসাম্য বজায় থাকে। এই দুটি হরমোন নারীদের ইস্ট্রোজেনজনিত ক্যান্সার থেকে প্রতিরক্ষা দেয়।

৯. ধূমপান ত্যাগ করুন- ধূমপান শুধু ফুসফুস ক্যান্সারই নয় বরং মুখের ক্যান্সারও সৃষ্টি করে। এ ছাড়া শ্বাসনালি ও খাদ্যনালির ক্যান্সারও হয় ধূমপানের কারণে। এমনকি পাকস্থলী, লিভার, প্রস্টেট, মলাশয় ও পায়ুপথ, সার্ভিক্যাল ও স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিও বাড়ায় ধূমপান।

১০. সাদা পাউরুটি খাওয়া বাদ দিন- উচ্চ গ্লিসেমিক উপাদান আছে এমন খাবার খেলে রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যায় এবং মলাশয় ও পায়ুপথ ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *