প্রচ্ছদ

ড্রাইভিং লাইসেন্স করবেন কীভাবে

অনেক কষ্ট করে টাকা জমিয়ে কিনেই ফেললেন সাধের গাড়ি। গাড়ির মালিক অনেকেই আছেন যারা ড্রাইভার না রেখে নিজেই চালাতে চান। ড্রাইভিং লাইসেন্স কীভাবে করতে হয় অনেকেই তা জানেন না। বিআরটিএ’র ওয়েবসাইট ঘেটে ড্রাইভিং লাইসেন্স করানোর প্রক্রিয়াটি জানবো আজ।

শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্সড্রাইভিং লাইসেন্সের পূর্বশর্ত হলো লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স। গ্রাহককে প্রথমে লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন করতে হবে। গ্রাহককে তার স্থায়ী ঠিকানা বা বর্তমান ঠিকানা (প্রয়োজনীয় প্রমাণাদিসহ) বিআরটিএ’র যে সার্কেলের আওতাভূক্ত তাকে সেই সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। সার্কেল অফিস কর্তৃপক্ষ তাকে একটি শিক্ষানবিস বা লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করবে যা দিয়ে আবেদনকারী ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবে। ২/৩ মাস প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর তাকে নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে নির্ধারিত কেন্দ্রে লিখিত, মৌখিক ও ফিল্ড টেস্ট-এ অংশ গ্রহণ করতে হবে। এসময় প্রার্থীকে তার লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স (মূল কপি) ও লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কলম সাথে আনতে হবে। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য বয়স ন্যূনতম ২০ বছর এবং অপেশাদার এর জন্য ন্যূনতম ১৮ বছর হতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড / জন্ম সনদ/পাসপোর্ট এর সত্যায়িত ফটোকপি।৪। নির্ধারিত ফী, ১ ক্যাটাগরি-৩৪৫/-টাকা ও ২ ক্যাটাগরি-৫১৮/-টাকা বিআরটিএ’র নির্ধারিত ব্যাংকে (ব্যাংক এর তালিকা www.brta.gov.bd তে পাওয়া যাবে) জমাদানের রশিদ।৫। সদ্য তোলা ০৩ কপি স্ট্যাম্প ও ০১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্সলিখিত, মৌখিক ও ফিল্ড টেস্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর পুনরায় একটি নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও ফী প্রদান করে স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য সংশিস্নষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণপূর্বক স্মার্ট কার্ড ইস্যু করা হয়। স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রিন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে তা গ্রহণের বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড / জন্ম সনদ/পাসপোর্ট এর সত্যায়িত ফটোকপি।৪। নির্ধারিত ফি (পেশাদার- ১৬৭৯/-টাকা ও অপেশাদার- ২৫৪২/-টাকা) বিআরটিএ’র নির্ধারিত ব্যাংকে জমাদানের রশিদ।৫। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন।৬। সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

3 Replies to “ড্রাইভিং লাইসেন্স করবেন কীভাবে

  1. payday loans personal long term loans payday loans loans payday installment loans guaranteed loans no checking account required installment loans guaranteed installment loans online loans best online loans payday loans america instant loans online payday loans online installment loans online cash loans online personal loans online cash advance cash advance cash advance cash advance online payday loan payday loan cash express loans payday loan online installment loans online installment loans installment loans personal loan interest payday loans instant va loans payday loans installment calculator direct lenders for payday loans 100 approved payday loans no fax online payday loans no credit check payday loans loans online online loans online loans no credit online loans no credit

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *