ডিএনএ গবেষণায় আয়ু বাড়ানোর উপায় আবিষ্কার!

বিজ্ঞানীরা বলেছেন, অতিরিক্ত প্রতি একটি বছর শিক্ষার কাজে ব্যয় করলে ১১ মাস আয়ু বাড়ে। আর প্রতি কেজি বাড়তি ওজনের কারণে দু্ই মাস আয়ু কমে।

এবং প্রতিদিন এক প্যাকেট সিগারেট খাওয়ার বিনিময়ে ৭ বছর আয়ু কমে।
এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা লোকের ডিএনএ-তে জেনেটিক কোডের ভিন্নতা বিশ্লেষণ করে এমন সব বিস্ময়কর তথ্য উদঘাটন করেছেন।
তাদের বিশ্বাস এর মধ্য দিয়ে চুড়ান্ত বিচারে আমাদের দীর্ঘায়ু লাভেরও নতুন নতুন উপায় আবিষ্কৃত হবে।

ওই গবেষক দল ৬ লাখেরও বেশি মানুষের জেনেটিক কোড ব্যবহার করে একটি প্রাকৃতিক এবং তথাপি ব্যপক পরিসরের পরীক্ষা চালান।

আমাদের ডিএনএ-তেই আমাদের জীবনের গতি-প্রকৃতির দিক নির্দেশনা দেওয়া থাকে।

এছাড়া গবেষকরা মানব ডিএনএ-তে এমন বিশেষ কিছু পরিবর্তনের ধরন খুঁজে পেয়েছেন যার মাধ্যমে জীবনকাল বদলে দেওয়া যেতে পারে। গবেষণাটির ফলাফল ন্যাচার কমিউনিকেশনস নামের জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

রোগপ্রতিরোধ পদ্ধতিকে সক্রিয় রাখার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোনো একটি জিনে পরিবর্তন ঘটিয়ে গড়ে সাত মাস আয়ু বাড়ানো সম্ভব। একটি জিন হলো ডিএনএ-তে থাকা এক সেট ইনস্ট্রাকশন।

যে জিনগত মিউটেশন বা পরিবর্তনের কারণে বাজে কোলোস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যায় তার ফলে আট মাস আয়ু কমে আসে।

ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ রোগের সঙ্গে সম্পর্কিত জিন APOE-তে মিউটেশন এর ফলে ১১ মাস আয়ু কমে যায়।
আর যেই জিনের কারণে ধুমপানের প্রতি আকর্ষন বাড়ে তা পাঁচ মাস আয়ু কমিয়ে দেয়।

ড. জোশি বলেন, এই জেনেটিক ভিন্নতাই আশার আলো দেখাচ্ছে। তিনি বলেন, আয়ুষ্কালের ভিন্নতার প্রায় ২০ শতাংশই আসে হয়তো উত্তরাধীকার সূত্রে। কিন্তু এই ধরনের মিউটেশনের মাত্র ১% খুঁজে পাওয়া গেছে।

তবে যাই হোক না কেন, বংশগতি আয়ুষ্কালকে প্রভাবিত করে ঠিকই তবে আপনি নিজের সিদ্ধান্তেও তাকে প্রভাবিত করতে পারেন।

ড. জোশি বিবিসিকে বলেন, ‘আয়ুষ্কালকে সরাসরি প্রভাবিত করে এমন জিন আবিষ্কারের প্রত্যাশায় আছি আমরা। যা থেকে আমরা বুড়িয়ে যাওয়া সম্পর্কে নতুন তথ্য জানতে পারব। এবং এর মাধ্যমে আমরা বুড়িয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়ায় চিকিৎসাগত হস্তক্ষেপ করতে পারব।

এমন কিছু রোগগত মিউটেশনও আছে যা আয়ুষ্কালকে পরিষ্কারভাবে প্রভাবিত করে। এবং এমনকি বিপর্যয়ও ডেকে আনতে পারে। যেমন হান্টিংটনস জিন। এই জিন যাদের দেহে থাকে তারা ২০ বছরেই মারা যেতে পারেন।

ওই গবেষণার পর এক্সিটার মেডিকেল স্কুলের অধ্যাপক ডেভিড মেলজার বলেন, ‘এখন তাহলে বলা যায় যে, শিক্ষাজীবনকে অতিরিক্ত আরো একটি বছরের জন্য সম্প্রসারিত করাটা এখন আগের চেয়ে আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ” কেননা এমনটো করলেই যে কেল্লাফতে! আয়ু বাড়বে ১১ মাস!

সূত্র: বিবিসি

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *