ছুরি ঠেকিয়ে নারী ধর্ষণই যার পেশা!

ধর্ষণ একটি সামাজিক ব্যাধি। আর কোনো ব্যাধি যখন সমাজে ছড়িয়ে পড়ে তখন সেটা মহামারী আকারে ধারণ করে। তাইতো ধর্ষণকে মানুষ এখন পেশা হিসেবে নিয়েছে। ভারতের চেন্নাইয়ের ২৮ বছরের যুবক মাধন অরিভালাগন। বেঙ্গালুরুতে একটি সফটওয়্যার কোম্পানিতে কাজ করত সে। ২০১৫-তে চাকরির জন্য চেন্নাইতে আসে। কিন্তু সেখানে সুবিধা না হওয়ার পরই অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে এ যুবক। পরবর্তীতে নারীদের টার্গেট করে প্রথমে ডাকাতি পরে গলায় ছুরি ধরে ধর্ষণ হয়ে যায় তার পেশা। তবে এই দুর্ধর্ষকারী একজন না দুইজন না পঞ্চাশজন নারীকে ধর্ষণ করেছে।

স্থানীয় পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাড়িতে একা থাকেন এমন নারীদেরই টার্গেট করত মাধন । তারপর সেইসব নারীদের জিনিসপত্র লুঠের পর ধর্ষণ করত। এমনকি, ধর্ষণের ভিডিও করে রাখত নিজের মোবাইলে। সেই ভিডিও দেখিয়ে ফের ধর্ষণের হুমকিও দিত অভিযুক্ত যুবক। পুলিশ এরকম অনেক ভিডিও পেয়েছে মাধনের মোবাইল থেকে।

সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *