কাঁটা গলানো ইলিশ ভুনা

ইলিশ মাছের কাটার ভয়ে বাচ্চারা অনেক সময় খেতে চায় না। আর শুধু বাচ্চারা কেন আমরা বড়রাও অনেক সময় কাটার ভয়ে মাছ খাই না। তাই কাঁটা গলানো বা কাঁটা নরম করে ইলিশ ভুনা করার পদ্ধতি জেনে নিন। এই পদ্ধতিতে মাছ রান্না করলে ছোট কাটাগুলো একদমই নরম হয়ে যাবে। আর বড় কাটাগুলো দেখা গেলেও মুখে দিলে গলে যাবে। এতে কাটা গলায় আটকানোর সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে।

উপকরণ: পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, লবণ স্বাদ মতো, মরিচের গুঁড়ো হাফ চা চামচ, ধনিয়ার গুঁড়ো কোয়ার্টার চা চামচ, জিরা গুঁড়ো কোয়ার্টার চা চামচ, আদা বাটা হাফ চা চামচ, পেঁয়াজ বাটা ৪ টেবিল চামচ, টক দই ২ টেবিল চামচ, সাদা ভিনেগার ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল ৩ টেবিল চামচ, ইলিশ মাছ মাঝারি সাইজের ১ টি, কাঁচা মরিচ ৪ টি।

প্রণালী: প্রথমে মাছের মসলা তৈরি করে নিতে বাটিতে আধা কাপ পরিমাণ পেঁয়াজ কুচি, স্বাদ মতো লবণ নিয়ে হাত দিয়ে চটকে নরম করে নিবেন। এর মধ্যে মরিচের গুঁড়ো হাফ চা চামচ, ধনিয়ার গুঁড়ো কোয়ার্টার চা চামচ, জিরার গুঁড়ো কোয়ার্টার চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, পেঁয়াজ বাটা চার টেবিল চামচ, টক দই দুই টেবিল চামচ, এক টেবিল চামচ সাদা ভিনেগার (অনেকেই মনে করতে পারেন, ভিনেগার দিলে ইলিশের গন্ধ চলে যাবে আর ভিনেগারের গন্ধ বেশি আসবে, আসলে এমন কিছুই না। মাছের কাটা নরম করার জন্য অবশ্যই ভিনেগার দিতে হবে), সরিষার তেল তিন টেবিল চামচ দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। এর মধ্যে মাছগুলো দিতে হবে।

এবার একটি প্রেশার কুকারের নিচে কিছু মসলা ছড়িয়ে দিতে হবে। এর উপর মাছগুলো দিয়ে দিবেন। বাকি মসলার সঙ্গে আধা কাপ পানি মিশিয়ে নিবেন। এরপর প্রেশার কুকারের ঢাকনা লাগিয়ে দিতে হবে। তারপর চুলার আঁচ একেবারে বাড়িয়ে প্রেশার কুকার বসিয়ে ১০ মিনিট জ্বাল দিতে হবে। এরপর চুলার আঁচ একদম কমিয়ে দেড় ঘণ্টা জ্বাল দিতে হবে। প্রেশার কুকার নামিয়ে মাছগুলো মসলাসহ একটি প্যানে নিয়ে নিবেন। তারপর নাড়া চাড়া করে জ্বাল দিয়ে পানি শুকিয়ে নিতে হবে। মাছ মাখা মাখা হলে ৩ থেকে ৪ টি কাঁচা মরিচ বোটা ছাড়িয়ে দিয়ে দিতে হবে। যখন মাছের তেল উপরে উঠে আসবে তখন এটা চুলা থেকে নামিয়ে পরিবেশন করতে পারেন। এভাবেই বাচ্চাদের জন্য কাঁটা গলানো ইলিশ মাছ রান্না করতে পারেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments