প্রযুক্তি

এবারের সূর্যগ্রহণে যেন পাগল হয়ে গিয়েছিল প্রাণী আর প্রকৃতি!

প্রকৃতিতে বেশ ভীতিকর প্রভাব ফেলেছে সাম্প্রতিক সূর্যগ্রহণ। এ ঘটনায় ফুটে থাকা ফুলগুলো তাকের পাঁপড়িগুলো গুটিয়ে নিয়েছে। তেমনই লাখ লাখ স্যামন ভেসে আসে উপকূলে। এ ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করেছেন বিজ্ঞানীরা।

সূর্যগ্রহণকালে অন্যান্য প্রাণীর আচরণ দেখার জন্য পরীক্ষামূলকভাবে কিছু প্রজেক্ট হাতে নেওয়া হয়। এর জন্য একটি অ্যাপও চালু করা হয়। ওটার মাধ্যমে যেকোনো মানুষকে উৎসাহিক করা হয়েছে প্রকৃতির অদ্ভুত আচরণ দেখলেই তা রেকর্ড করে রাখার জন্য। বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাঠানো মানুষের পর্যবেক্ষণগুলো জোগাড় করতে যাবতীয় দায়িত্ব সম্পন্ন করেন সান ফ্রান্সিসকোর ক্যালিফোর্নিয়া একাডেমি অব সায়েন্সেস এর সিটিজেন সায়েন্স রিসার্চ ডিরেক্টর রেবেকা জনসন।

বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, সূর্যগ্রহণ কেবল মানুষকেই আচরণকেই উদ্ভুত করেছে তা নয়, অন্যান্য প্রাণি আর উদ্ভিদেও প্রভাব ফেলেচে। ভয় পেয়ে যাওয়া ঘোড়া আর ক্ষুধার্ত মাছের নানা ব্যবহার প্রকাশ পেয়েছে। তাদের আচরণের কিছু নমুনা দেখে নিন।

 

গৃহপালিত প্রাণী 
বাড়িতে যে প্রাণীটিকে আদরের সঙ্গে পালছেন তাদের আচরণ দিনের আলোর আনাগোনার ওপর অনেকটা নির্ভর করে। তাপমাত্রাও ভূমিকা রাখে। এবারের সৌরগ্রহণ এমন ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় হয়েছে যে অনেকগুলো অদ্ভুত ঘটনা দেখা গেছে। প্রায় সাড়ে ৩ শো প্রজাতির প্রাণীর ওপর সূর্যগ্রহণের প্রভাব দেখা গেছে। কুকুর-বিড়ালগুলোর মধ্য ভয় চলে আসে। আবার বেশ কয়েকটি অন্যান্য দিনের চেয়ে যেন বেশি ভালো ছিল। যেসব ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে সেগুলো সত্যিই অদ্ভুত।

খামারের প্রাণী 
আকাশ অন্ধকার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুরগির আচরণ বিদঘুটে ছিল। এ সময় তাদের ওপর তাপমাত্রার পরিবর্তনের প্রভাবটাই বেশি ছিল। দিনটি ছিল খুবই গরম। সূর্য ঢেকে যাওয়ার পর তাপমাত্রার পতন ঘটে উল্লেখযোগ্য হারে। ওরা দৌড়াচ্ছিল, চিৎকার করছিল, লাফাচ্ছিল আর আবল-তাবল কাজ করছিল। ওরা ভেবে নিয়েছিল হঠাৎ করেই বিকাল হয়ে গেছে।

কীটপতঙ্গ, পাখি আর অন্যান্য প্রাণী 
সূর্যগ্রহণের আগ দিয়ে সিকাডাস নামের পতঙ্গ বেশ জোরেশোরে ডাকছিল। কিন্তু গ্রহণ শুরু হতেই ওরা একেবারে চুপ হয়ে যায়। অদ্ভুত নিরবতা। সূর্যগ্রহণের সময় পাখিদের ওড়ার নকশা বদলে যায়। তাদের ডাকাডাকির পদ্ধতিও বদলে যায়। বেশ কয়েকজন মাছ ধরছিলেন। তারা হঠাৎ অনুভব করেন, সব কেমন যেন নিশ্চুপ হয়ে গেছে। তখন শুরু হয়েছে সূর্যগ্রহণ। আবার এ সময় নাকি বড় মাছগুলো খুব কাছে চলে আসে।

অন্যান্য প্রভাব 
শুধু প্রাণীজগতেই নয়, অন্যান্য ক্ষেত্রেও পড়েছে প্রভাব। ঢেউয়ে বেশ জোর দেখা যায়। ওয়াশিংটনে একটি স্যামন মাছের খামারে দেখা গেছে, ওরা যেন পাগল হয়ে গেছে। আটলান্টিকেও লাখ লাখ স্যামন উপকূলে চলে আসে। এমন বহু ঘটনা ধরা পড়েছে সূর্যগ্রহণকালে।

গত ২১ আগস্ট পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখেছে বিশ্ব। আমেরিকাবাসীরা চাক্ষুষ করলেন সবচেয়ে ভালো করে। ৯৯ বছর পর প্রথম এই ধরনের পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা গেল।
সূত্র : লাইভ সায়েন্স

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

One Reply to “এবারের সূর্যগ্রহণে যেন পাগল হয়ে গিয়েছিল প্রাণী আর প্রকৃতি!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *