অবৈধ সম্পর্কের জেরে আত্মহত্যা যুবকের, উলঙ্গ করে ঘোরানো হল মহিলাকে

গ্রামবাসীদের সন্দেহ ছিল সম্পর্ক রয়েছে ওদের দুই জনের মধ্যে। বাড়ির লোকেদের দাবি দুইজনই স্বীকার করেছিল তাদের মধ্যে রয়েছে সম্পর্ক, তা সে শারীরিক হোক কি মানসিক। তা থেকেই দুজনের সংসারে লেগেছিল অশান্তি। এদিন উদ্ধার হল বিবাহিত যুবকের ঝুলন্ত মৃতদেহ, সন্দেহ আত্মহত্যার। কিন্তু সেই মৃত্যুর রোষ গিয়ে পড়ল ওই যুবকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া গ্রামেরই এক বিবাহিত মহিলার প্রতি। আর সেই রোষের জেরে মধ্যযুগীয় বর্বরতা ফিরল পশ্চিম মেদিনীপুরের সদর ব্লকের খৈরুল্লাচক এলাকায়। গ্রামের মহিলারাই ওই গৃহবধূকে উলঙ্গ করে, চুল কেটে বেধড়ক মারধর করল। আর সেই ভিডিও মুহুর্তের মধ্যে সোস্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাল হয়েও গেল।

জানা গিয়েছে, খৈরুল্লাচক এলাকায় বৃহস্পতিবার সকালে সুভাষ ঘোষ নামে ওই যুবকের ঝুলন্ত মৃতদেহ খুঁজেও পান তার বাড়ির লোকেরা। তারপরেই ঘটে চরম নির্লজ্জজনক ওই ঘটনাটি। সুভাষের দিদি এদিন সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, গত ৬ মাস আগে তারা দুজনের ওই অবৈধ সম্পর্কের আঁচ পান। তারপর তারা দুজনকেই নিষেধ করেন ওই সম্পর্ককে আর আগে না বাড়াতে। সুভাষের দিদির দাবি, তার ভাই সেই নিষেধ শুনলেও তা মানতে নারাজ ছিল ওই গৃহবধূ। তাই তাদের সম্পর্কে ভাটা পড়েনি কোনদিন। আর তা নিয়েই নিত্যদিন অশান্তি বাধত সুভাষের সংসারে। সুভাষের দিদির দাবি, সুভাষ জানিয়েছিল ওই মহিলা তাদের সম্পর্কের ভিডিও ও ফোটো দেখিয়ে তা বাজারে ছাড়ার ভয় দেখিয়েছিল তাকে। সেই সঙ্গে ওই মহিলা এটাও জানিয়েছিল যে সুভাষ যদি কোনদিন সম্পর্ক থেকে বার হবার চেষ্টা করে তাহলে সে পুলিশের কাছে ধর্ষনের অভিযোগ দায়ের করবে। সুভাষের দিদির দাবি, তিনি ওই মহিলাকে বলেছিলেন তার ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্কে না জড়াতে, তাতে নাকি ওই মহিলা দাবি করে সুভাষ তার জীবন নষ্ট করেছে। তাই সেও সুভাষ্কে চট করে ছাড়বে না।

সেটা শোনার পরেই সুভাষ তার পরিবারকে জানিয়েছিল সে রকম কিছু হলে সে আত্মহত্যা করবে। এদিন তার ঝুলন্ত দেহ পাওয়ার পরেই গ্রামে উত্তেজনা ছড়ায়। গ্রামের মহিলারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওই মহিলাকে বাড়ি থেকে টেনে এনে রাস্তার উপর প্রকাশ্যে উলঙ্গ করে, তার মাথার চুল কেটে গায়ে ডিজেল ঢেলে দেয়। বেধড়ক মারধর করে তাকে গোটা গ্রামও ঘোরানোও হয়। পরে এলাকাবাসীদের একাংশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। গ্রামবাসীদের একাংশের দাবি, সুভাষের দিদিই গ্রামের মহিলাদের ভুল বুঝিয়ে ওই মহিলাকে নিগৃহীত করিয়েছে। সুভাষ ও ওই মহিলার মধ্যে সেরকম কোন সম্পর্ক ছিল না। তবে দুজনেই দুজনের পরিচিত ছিল। তাদের মধ্যে কথাও হত।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *